,



প্রধানমন্ত্রীর এ্যাকশন ডাইরেক্ট এ্যাকশন : মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের | Times Tribune

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি :: বাংলাদেশ অাওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা দুর্নীতি, মাদক, সন্ত্রাস,টেন্ডারবাজি, ভূমি দখলবাজ মুক্ত বাংলাদেশ বিনির্মাণে শুদ্ধি অভিযান শুরু করেছেন। আগে তিনি নিজের দল পরিস্কার করছেন। তারপর বাইরে শুরু করবেন। দুর্নীতিবাজ, টেন্ডারবাজ,ভূমি দস্যু,মাদকজীবী যে দল,সংগঠন বা যে পরিচয়ের হোক না কেন কারো এ বিষয়ে নেত্রীর অবস্থান অত্যন্ত স্পষ্ট। নিজের লোকদেরকে শায়েস্তা করার সৎ সাহস যার আছে তিনিই শেখ হাসিনা। সকলের খোঁজ খবর নেয়া হচ্ছে। সময় হলে বুঝতে পারবেন। দেশব্যাপী নেটের জাল বিছানো হয়েছে। চিহ্নিত ভূমিদস্যু, মাদকজীবী, সন্ত্রাসী সাবধান হয়ে যান। বার বার বলছি সাবধান হয়ে যান। এ্যাকশন শুরু হয়ে গেছে । মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর এ্যাকশন ডাইরেক্ট এ্যাকশন।

গতকাল ২৭ অক্টোবর দুপুরে নগরীর পাঁচলাইশস্থ একটি কমিউনিটি সেন্টারে চট্টগ্রাম বিভাগীয় ৬ সাংগঠনিক জেলা চট্টগ্রাম মহানগর, উত্তর, দক্ষিণ, রাঙামাটি, বান্দরবান ও খাগড়াছড়ি জেলার প্রতিনিধি সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন।

প্রতিনিধি সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন তথ্যমন্ত্রী এবং অাওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ডক্টর হাছান মাহমুদ, অাওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক মাহবুব উল অালম হানিফ এমপি।

ওবায়দুল কাদের বলেন, শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ভিশন ২০২১, ২০৪১ এবং ডেল্টাপ্ল্যান ২১০০ নিয়ে এগিয়ে চলেছেন। অাজ বাংলাদেশ জিডিপিতে সবার শীর্ষে যা সম্ভব হয়েছে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে। আওয়ামী লীগ কখনো পরাজয় মানে না। পরাভব মানে না। ধ্বংসের বেদীমূলে দাঁড়িয়ে সৃষ্টি সুখের উল্লাসে উল্লসিত হওয়া আওয়ামী লীগের প্রবৃত্তি।

চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগ সম্পর্কে তিনি বলেন, মহানগর আওয়ামী লীগের মূল সমস্যা অন্তর্কলহ এখন অনেকটা প্রসমিত। এখানে নেতৃবৃন্দের সাথে দেখা হয়। তুচ্ছ ঘটনা নিয়ে ঘটনা ঘটিয়ে প্রতিপক্ষের হাতে ইস্যু তুলে না দেয়ার জন্য তিনি নেতৃবৃন্দের প্রতি আহবান জানান।
তিনি আরো বলেন, ক্ষমতার দাপট দেখাবেন না। ক্ষমতা চিরস্থায়ী নয়। যখন ক্ষমতা থাকবে না তখন কোথায় পালাবেন? তাই তৃনমূল নেতাকর্মীদের কাছে থাকুন। উন্নয়নের সাথে আচরণ সমন্বয় না হলে কখনোই শতভাগ সফলতা আসে না।

প্রতিনিধি সভায় তৃণমূল নেতা-কর্মীরা অাওয়ামী লীগের প্রাণ উল্লেখ করে তথ্যমন্ত্রী ড.হাছান মাহমুদ বলেছেন, অাওয়ামী লীগ কর্মীদের দল, নেতাদের দল নয়। দলে যেসব ছারপোকা উইপোকা ঢুকেছে অাগামী সম্মেলনকে সামনে রেখে সেইসব অনুপ্রবেশকারীদের সকল পদ পদবী থেকে বাদ দিতে হবে।

চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা অাওয়ামী লীগের সভাপতি মোসলেম উদ্দিন অাহমদের সভাপতিত্বে ও চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সিটি মেয়র অা.জ.ম নাছির উদ্দিনের সঞ্চালনায় অন্যান্যের মধ্যে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক (চট্টগ্রাম) পানি সম্পদ উপমন্ত্রী একেএম এনামুল হক শামীম, অাওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন এমপি, দক্ষিন জেলা অাওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমান, উত্তর জেলার সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এম এ সালাম, বান্দরবান জেলার সভাপতি কৈ. শৈ. হ্লা, চট্টগ্রাম উত্তর জেলার ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এবিএম ফজলে করিম চৌধুরী এমপি, মহানগর অাওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী, অাওয়ামী লীগের উপ দপ্তর সম্পাদক ও প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া, উপপ্রচার সম্পাদক অামিনুল ইসলাম অামিন, পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রী বীর বাহাদুর উ শৈ শিং, চট্টগ্রাম বিভাগীয় ৬সাংগঠনিক জেলার প্রতিনিধিরা বক্তব্য রাখেন।

প্রতিনিধি সভায় অাগামী ২৪ নভেম্বর খাগড়াছড়ি, ২৫ নভেম্বর রাঙামাটি, ২৬ নভেম্বর বান্দরবান ও ৩০ নভেম্বর চট্টগ্রাম জেলার সম্মেলন এবং ১১নভেম্বর চট্টগ্রাম মহানগরের বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত হওয়ার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়েছে।

TT/F

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ